ঘুর্নিঝড় ইয়াস/ দখিনে ৪ শিশুসহ ৬ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত: ৮:২৬ অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০২১

ঘুর্নিঝড় ইয়াস/  দখিনে ৪ শিশুসহ ৬ জনের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঘুর্নিঝড় ইয়্রস তান্ডবে দক্ষিনাঞ্চলে চার শিশুসহ ৬ জন নিহত হয়েছে। এর মধ্যে বরিশালের বাকেরগঞ্জ, বরগুনার বেতাগী ঝালকাঠীর রাজাপুরে চার শিশু, বামনায় এক জেলে এবং ভোলার লালমোহন এক রিকসা চালক রয়েছে।

বাকেরগঞ্জে দুই শিশু প্রান হারিয়েছে। ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে নদ-নদীতে অস্বাভাবিক জোয়ারে বসতবাড়ির আশপাশ পানিতে প্লাবিত হওয়ায় খেলতে গিয়ে বাকেরগঞ্জে শিশু দুটির মৃত্যু হয় বলে স্বজনরা জানিয়েছেন।
মারা যাওয়া দুইজন হলো- বাকেরগঞ্জের নিয়ামতি ইউনিয়নের ঢালমারা গ্রামের হাফিজুর রহমানের মেয়ে আড়াই বছর বয়সী সুমাইয়া আক্তার ও গারুরিয়া ইউনিয়নের পশুরী গ্রামের আজগর আলীর তিন বছর বয়সী মেয়ে আজওয়া আক্তার।
বাকেরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক ডা. ফারিয়া এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, শিশু সুমাইয়াকে সকালে এবং আজওয়া আক্তারকে দুপুরে বাকেরগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে আসেন স্বজনরা। হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই শিশু দুটির মৃত্যু হয়।
স্বজনরা জানিয়েছেন, নদ-নদীর অস্বাভাবিক জোয়ারে তাদের গ্রামগুলো পানিতে সয়লাব। পরিবারের সদস্যদের অগোচরে শিশু দুটি খেলতে গিয়ে পানিতে ডুবে যায়।

ঝালকাঠির রাজাপুরে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস ও পূর্ণিমার প্রভাবে সৃষ্ট অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে ডুবে মো. সিয়াম হোসেন নামে আট বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে উপজেলার মেডিকেল মোড়সংলগ্ন এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।
শিশুটি উপজেলার পিংড়ি গ্রামের মো. ফারুক হাওলাদারের ছেলে। সে আজিজিয়া নূরানি কিন্ডারগার্টেন মাদ্রাসার দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ত।
জোয়ারের পানিতে ফসলের মাঠ তলিয়ে গিয়ে পুকুরের সঙ্গে সমান হয়ে গেছে। সিয়াম মাঠের পানিতে নেমে পুকুরে তালিয়ে যায়।
সিয়ামের বাবা মো. ফারুক হাওলাদার বলেন, ব্যবসার কারণে তিনি উপজেলার মেডিকেল মোড় এলাকায় বাসা ভাড়া করে পরিবার নিয়ে থাকেন। বুধবার সকাল থেকেই পাশের ফসলের মাঠে সহপাঠীদের সঙ্গে খেলা করছিল সিয়াম। দুপুর থেকে তাকে পাওয়া যায়নি। জোয়ারের পানিতে ফসলের মাঠ তলিয়ে গিয়ে পুকুরের সঙ্গে সমান হয়ে গেছে। সিয়াম কোনো একসময় মাঠের পানিতে নেমে পুকুরে তালিয়ে যায়। পরে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে মাঠের মধ্যের পুকুরে ভাসমান অবস্থায় পাওয়া যায় তাকে। উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সিয়াম মৃত ঘোষণা করেন।

বরগুনার বেতাগী উপজেলায় পূর্ণিমার জোয়ার এবং ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’র প্রভাবে বিষখালী নদীর পানি বেড়িবাঁধ ভেঙে গ্রামে প্রবেশ করেছে। আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়া পথে মায়ের কোল থেকে পড়ে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার সরিষামুড়ি ইউনিয়নের দক্ষিণ কালিকাবাড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু ইমামুল হোসেন (৩) ওই গ্রামের মো. স্বপন মিয়ার ছেলে।

মঙ্গলবার (২৬ মে) রাতে বরগুনার বামনায় মাছ শিকার করতে গিয়ে নান্না জোমাদ্দার (৩৫) নামে এক জেলের মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার দক্ষিণ ডৌয়াতলা গ্রামের মতি জোমাদ্দারের পুত্র।
পারিবারিক সূত্র জানায়, নান্না মঙ্গলবার রাতে বাড়ির পাশের হোতাখালে মাছ শিকার করতে গেলে হঠাৎ খালের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তিনি পানিতে ডুবে মৃত্যু বরণ করেন।

লালমোহনে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে গাছচাপা পড়ে আবু তাহের (৪৮) নামের এক রিকশাচালকের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার কালমা ইউনিয়নের মৃধার চৌমুহনী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আবু তাহের স্থানীয় গফুর পাটোয়ারীর ছেলে।
নিহতের স্বজনরা জানান, রাতে তিনি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাইরে যান। এসময় প্রচণ্ড ঝড়ো বাতাসে বাগানের একটি রেইনট্রি গাছের ডাল ভেঙে তার গায়ে পড়লে তিনি মারাত্মকভাবে আহত হন। পরে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। পরে চিকিৎসকরা তাকে ভোলা সদর হাসপাতালে রেফার্ড করলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১১টার দিকে তিনি মারা যান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ